৫ মাসেই পুরো কুরআন হাতে লিখল ৮ম শ্রেণির ছাত্রী ফাতেমা

মিশরের আল-আজহারের অন্তর্গত একটি স্কুলের অষ্টম শ্রেণীর শিক্ষার্থী “ফাতেমা ইউসুফ আদলি হাসান” উসমান তাহার ক্যালিগ্রাফিতে কুরআন লিখেছেন। পবিত্র কুরআনের

এই পাণ্ডুলিপিটি তিনি মাত্র পাঁচ মাসে লিখেছেন। মিশরের কানা প্রদেশের ফারতুশ শহরের আল-হাজ সালাম গ্রামের নিবাসী ফাতেমা এ ব্যাপারে “আল ইয়াউম আস সাবেয়”

বলেন: আমি অষ্টম শ্রেণীর সাহিত্য বিভাগের শিক্ষার্থী। ১৫ বছর বয়সে সম্পূর্ণ কুরআন হেফজ করেছি এবং কুরআন হেফজ করার পর মাত্র ৫ মাসে উসমান তাহা বর্ণমালায় কুরআন লিখেছি। তিনি বলেন পবিত্র কুরআন লেখার উদ্দেশ্য হচ্ছে আয়াতগুলো মুখস্থকরণকে একীভূত করা, আরবি স্ক্রিপ্ট শক্তিশালী করা এবং আমার লিপিটিকে উসমান তাহার ক্যালিগ্রাফির অনুরূপ করার চেষ্টা করা। আমার একটি অনন্য কাজ হিসেবে এটা স্মৃতি হিসেবে থাকবে। মিশরের এই শিক্ষার্থী আরও বলেন: আমার জীবনে কুরআন লেখার এবং আয়াত মুখস্থ করা একটি গৌরব বিষয়। এ পর্যন্ত বেশ কয়েকটি কুরআন প্রতিযোগিতার অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করেছি এবং সেখানে শীর্ষ স্থানে উত্তীর্ণ হয়েছে।

আরো পড়ুন: রেডিওতে শুনে শুনে কোরাআনের হাফেজ হলেন ফিলিস্তিনের মরু রাখাল সালামাহ আলি ! সালামাহ আলি ফিলিস্তিনের মরুভূমিতে বাস করেন। তিন একজন মরু রাখাল। মরুর বুকে ছাগল চড়িয়ে বেড়ান। আর এই ছাগল চড়াতে চড়াতে রেডিওতে পবিত্র কোরআন তেলওয়াত শুনতেন। এদিকে কয়েক বছর যাবৎ এভাবে রেডিও শুনে শুনে পবিত্র কোরআনের হেফজ সম্পন্ন করেছেন সালামাহ। বয়স ৬০ পেরোলেও অদম্য ইচ্ছাশক্তি আর কঠোর অধ্যবসায়ের মাধ্যমে পবিত্র কোরআন আত্মস্থ করেছেন তিনি। সে ঘটনা জানুন তার নিজের বর্ণনায়। এ ব্যাপারে আলহাজ সালামাহ বলেন, ব্যক্তিগত প্রচেষ্টায় পবিত্র কোরআন হেফজ শুরু করার চার বছর পর তা সমাপ্ত হয়। কারণ আমাদের এলাকায় কোনো হাফেজ কিংবা হেফজখানা নেই। হেফজের সময় পেছনের পাঠ পুনরায় পড়া খুবই জরুরি। নতুবা পঠিত সবকিছু ভুলে যাওয়ার সম্ভাবনা আছে। এক্ষেত্রে রেডিওতে কোরআন শোনার ব্যবস্থা আমাকে অনেক বেশি সহায়তা করে। রেডিওতে কোরআন তেলাওয়াতের সময় সম্পর্কে আমি জানতাম। তখন আমিও তাদের সঙ্গে শুনে শুনে কোরআন পাঠ করতাম। এভাবে তা শুনতে শুনতে আমার বিশুদ্ধ কোরআন তেলাওয়াত শেখা হয়ে যায়। তার ভাষায়, আমি মূলত নিজের ছাগল চড়ানোর সময় রে;ডি;ওতে কোরআন তে;লাওয়াত শুন;তাম। এ;ভাবে আ;মি তা;জবিদের সব রীতি-নীতি আয়ত্ত করি। ফলে অত্যন্ত বিশুদ্ধ ও সুন্দরভাবে কোরআন পড়া শিখে ফেলি। তিনি আরও বলেন, অধ্যয়নের প্রতি নিজের প্রবল আগ্রহ কো;রআন হে;ফজের ক্ষে;ত্রে আ;মাকে স;হায়তা ক;রেছে। ছাগল চ;রা;নো;র স;ময় প;বিত্র কো;র;আ;ন তে;লাওয়াতের মা;ধ্;যমে ভি;ন্ন এক জগতে চলে যাই আমি। আমার এখন ষাট বছর। কিন্তু আমি এ;খ;ন;ও পবিত্র কোরআন বার বার পড়তে থাকি। সালামাহ বলেন, আমি ম;রু;ভূ;মিতে বাস করি, যেখানে কোনো হেফজখানা বা হাফেজ ব;ল;;তে কি;;ছু;ই নে;ই। তদুপরি কোরআন হেফজের ক্ষেত্রে ‘নিঃসঙ্গতা ও অফুরন্ত অবসর সময়’ আমাকে সবচেয়ে বেশি সহায়তা করে। সর্বোপরি মহান আল্লাহর সার্বিক সহায়তা তো আছেই।

Author: admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *