শিশুটি খুবই অসুস্থ, তাই মেরে টয়লেটের ট্যাংকে ফেলে দেয় বাবা-মা!

সাতক্ষীরা সদর উপজেলার হাওয়ালখালীতে দিনদুপুরে চু’রি হওয়ার ৩৬ ঘণ্টা পর ১৫ দি‌নের নবজাতক সোহানের ম’র‌দে’হ বাড়ির টয়লেটের সেপটিক ট্যাংক থেকে উ”দ্ধা’র

করেছে পুলিশ। শুক্রবার (২৭ ন‌ভেম্বর) দিনগত রাত ১টার দিকে পুলিশ তার ম’রদে’হ উ’দ্ধা’র করে। এর আগেই সোহানের বাবা সোহাগ হোসেনকে গ্রে'’প্তা’র করে পুলিশ। অপরদিকে শিশুটির মাকে অ’সুস্থ’তা জনিত কারণে প্রথমে সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরে তাকেও গ্রে'’প্তার দেখানো হয়েছে। এর আগে শুক্রবার সকালে

সদর থানা পুলিশ ও পিবিআই পৃথকভাবে চু’রি হওয়া শিশুটি উ’দ্ধারে কাজ শুরু করে। দুপুরে শিশুটির বাবা সোহাগ হোসেন সদর থানায় একটি সাধারণ ডা’য়েরি করেন। সাতক্ষীরা সদর সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মীর্জা সালাহ উদ্দীন জানান, পুলিশ এ ঘটনায় স’ন্দে’হভা’জন হিসেবে শিশুটির মা ও বাবাকে জিজ্ঞাসাবাদ করলে তারা

জানান, যে শিশুটি খুবই অসুস্থ ছিল। সে জ’ন্ডি’স, রি’কেট, নি’উমো’নি’য়া ও হা’র্টের সম’স্যাসহ বিভিন্ন রো’গে ভু’গছিল। মীর্জা সালাহ উদ্দীন বলেন, এ সমস্ত কারণে ও ভবিষ্যতের কথা চিন্তা করে তারা স্বামী-স্ত্রী দুজনে যোগসাজশে শিশুটিকে হ- ‘ত্যা করে ম’রদেহ গু”মের ঘটনাটি ঘটিয়েছে বলে স্বী’কারো’ক্তি দিয়েছে। তিনি আরো জানান, শিশুটির বাবা সোহাগ হোসেন শিশুটিকে মে”রে তাদের বাড়ির সামনের সেপটিক ট্যাংকির ভেতরে ফে’লে দেয়। আর এ কাজে স’হযো’গিতা করে তার মা ফাতেমা খাতুন। পুলিশ বিষয়টি জানার পর শুক্রবার রাত ১টার দিকে ম’রদে’হ উ”দ্ধা”র করে।

Author: admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *