ভয়াবহ রূপ নিচ্ছে ওমানের করোনা পরিস্থিতি, পুনরায় লকডাউনের আশংকা

ওমানে চলছে মহামারী করোনার তৃতীয় ঢেউ। টিকা প্রয়োগ করেও লাগাম টানা যাচ্ছেনা নতুন সংক্রমণের। রবিবার (২১-মার্চ) ওমান স্বাস্থ্য

মন্ত্রণালয়ের দেওয়া তথ্য অনুসারে দেশটিতে আজ নতুন আক্রান্তের সংখ্যা ১৬২২ জন এবং মৃত ২ জন। আইসিউতে ভর্তি রোগীর সংখ্যা ১০৩

জন। এখন পর্যন্ত মোট আক্রান্তের সংখ্যা ১ লাখ ৫০ হাজার ৮০০ জন এবং মোট সুস্থের সংখ্যা ১ লাখ ৩৯ হাজার ১০০ জন। নতুন ২ জনের মৃত সহ মোট মৃতের সংখ্যা ১ হাজার ৬২২ জন। গত ৩ দিনে নতুন সুস্থের সংখ্যা ১২২৯ জন। দেশটিতে মোট সুস্থতার সূচক ৯৩ শতাংশ। গত ২৪ ঘণ্টায় দেশটির বিভিন্ন হাসপাতালে নতুন ভর্তি রোগীর সংখ্যা ৫২ জন। এখন পর্যন্ত দেশটির বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায়

আছেন ৩৩৩ জন। মহামারী করোনার সংক্রমণ থেকে রক্ষা পেতে কোনো ধরণের গুজবে কান না দিয়ে সবাইকে দ্রুত ভ্যাকসিন নিতে আহ্বান জানিয়েছে দেশটির সরকার। সেইসাথে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে নিতে ওমান সরকারের সকল নির্দেশনা মেনে চলতে নাগরিক এবং প্রবাসীদের অনুরোধ জানিয়েছে ওমান স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়। অন্যথায় আইন অমান্যকারীদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়ার হুশিয়ারি দিয়েছে ওমান সুপ্রিম কমিটি। এদিকে বাংলাদেশে আজ মারা গেছেন আরও ২২ জন। এ নিয়ে মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়াল ৮ হাজার ৬৯০ জনে। এছাড়া গত ২৪ ঘণ্টায় ২ হাজার

১৭২ জন করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছেন। এ নিয়ে দেশে এখন পর্যন্ত মোট করোনা রোগীর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৫ লাখ ৭০ হাজার ৮৭৮ জনে। স্বাস্থ্য অধিদফতরের প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে আরও উল্লেখ করা হয়, এদিন সুস্থ হয়েছেন আরও ১ হাজার ৬৮৭ জন। এ পর্যন্ত মোট সুস্থ হয়েছেন ৫ লাখ ২২ হাজার ৪০৫ জন। এদিকে মহামারি করোনা ভাইরাসের দৈনিক সংক্রমণের একের পর এক রেকর্ড হচ্ছে ভারতে। টানা কয়েক দিন ধরেই করোনার সংক্রমণ আশঙ্কাজনক হারে বাড়তে দেখা গেছে দেশটিতে। গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে ৪৩ হাজার ৮৪৬ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছে। অন্তত চার মাসের মধ্যে এই সংখ্যা সর্বোচ্চ। সংক্রমণ আশঙ্কাজনক হারে বাড়তে থাকায় ভারতের পাঞ্জাব, মহারাষ্ট্র, মধ্যপ্রদেশ এবং তামিলনাড়ু প্রদেশে পুনরায় স্কুল বন্ধ রাখার বিষয়টি ভাবা হচ্ছে। এ ছাড়া সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত জেলাগুলোতে লকডাউন জারি হতে পারে জানিয়েছে

ভারতীয় গণমাধ্যমগুলো। ১১২ দিনের মধ্যে গত ২৪ ঘণ্টায় সর্বোচ্চ সংক্রমণের ঘটনা ঘটেছে। স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের দেয়া তথ্য অনুযায়ী, মহারাষ্ট্র, পাঞ্জাব, কেরালা, কর্ণাটক এবং গুজরাটে গত কয়েক দিন ধরেই সংক্রমণের রেকর্ড হচ্ছে। মোট সংক্রমণের বেশির ভাগই ওই পাঁচ রাজ্যে।

Author: admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *