চকোলেটের বয়স ১২১

১২১ বছরের পুরনো চকোলেট বার খুঁজে পাওয়া গেল যুক্তরাজ্যের প্রাচীন এক বাড়িতে। চকোলেট বারের টিনের কৌটাটিও অক্ষত রয়েছে। দক্ষিণ

আফ্রিকায় যুদ্ধরত ব্রিটিশ সেনাদের উৎসাহ দিতে ব্রিটিশ রানি ভিক্টোরিয়া এগুলো পাঠিয়েছিলেন। চকোলেটের কৌটায় রানির হাতের লেখা

শুভেচ্ছা বার্তাও ছিল। ওই চকোলেট স্যার হেনরি এডওয়ার্ড প্যাস্টন-বেডিংফিল্ডের। তিনি দ্বিতীয় বোয়ের যুদ্ধে (১৮৯৯-১৯০২) সাউথ আফ্রিকান রিপাবলিকের দুটি স্বাধীন স্টেটের বিরুদ্ধে ব্রিটিশ বাহিনীর পক্ষে যুদ্ধ করেন। ইংল্যান্ডের পূর্বাঞ্চলের নরফোকের অক্সবার্গ হলে ৫০০ বছরের পুরনো একটি বাড়িতে হেনরির হেলমেট কেসের সঙ্গে ওই চকোলেটের কৌটাও ছিল। চকোলেটের ওই কৌটার ঢাকনায় রানি ভিক্টোরিয়ার হাতের

লেখায় শুভেচ্ছা বার্তায় লেখা রয়েছে, ‘সবাইকে নতুন বছরের শুভেচ্ছা’। এ ছাড়া কৌটায় খোদাই করা আছে, ‘দক্ষিণ আফ্রিকা ১৯০০’। কৌটায় রানির একটি পোর্ট্রেটও রয়েছে। ন্যাশনাল ট্রাস্ট-সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের ধারণা, যুদ্ধে অংশগ্রহণের স্মৃতি হিসেবে হেনরি তার হেলমেট ও চকোলেট একসঙ্গে রেখেছিলেন। হেনরির মেয়ে ফ্রান্সেস গ্রে'টহেডের ১০০ বছর বয়সে ২০২০ সালে মারা যান। তার মৃত্যুর পর এসব স্মৃতিস্মারক উদ্ধার করা হয়। ১৮৯৯ থেকে ১৯০২ সালে দ্বিতীয় বোয়ের যুদ্ধে ইংরেজ সেনাদের মনোবল বাড়াতে রানি ভিক্টোরিয়া এক লাখ চকোলেট পাঠান,

যার প্রতিটির ওজন অর্ধ পাউন্ড (২২৬ গ্রাম)। ওই সময় ব্রিটেনের তিনটি প্রধান চকোলেট উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান ছিল ক্যাডবেরি, ফ্রাই ও রাউনট্রি।

Author: admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *